Feeds:
Posts
Comments

Archive for October, 2007


======================================
সাহসী আমি ছিলাম না কোন কালেই। বরং সত্যি বললে বলতে হয়, আমি চিরকালই ভীতুর ডিম।খুব ছোট বেলা থেকেই আমার সাধ্য ছিলনা বড় আকারের কোন ২ নাম্বারি করার। আর যদিও বা করতাম, বাসায় এসে বলে দিতাম সেই অপকর্ম এর কথা।তা সেই আমি যখন বুয়েটে গন্ডগোল হল শেষবার, তখন নিরাপদে বুয়েট ক্যাম্পাস থেকে পিঠটান দিবো হল এর বন্ধুদের বিপদের মাঝে ফেলে, এ আর বিচিত্র কি !


=====================================
আমাকে কেউ যদি জিজ্ঞেস করে, তোমার প্লাস পয়েন্ট কি ? আমি বিনা ভাবনায় উত্তর দিবো যে, আমি আমার দুর্বলতা আর সবলতা, ২ টা সম্পর্কেই সম্যক জানি। আর জানি বলেই বলতে পারি যে, আমি আসলে মানুষ খারাপ না, একটু ভীতু, এই যা।


=====================================
লেখা লেখি করার অন্তর্গত ইচ্ছাটা আসলে আমার অনেক দিনের। ইচ্ছা বলছি এই কারনে, কারন আমি যত বেশী লেখার বিষয় নিয়ে ভেবেছি তার ১০% ও কাগজ কলমে বা কী বোর্ডে প্রকাশ করিনি।তা সেই আমি কিভাবে কিভাবে যেন দুষ্ট লোকের প্ররোচনায় পড়ে, ওয়ার্ডপ্রেসে একটা ব্লগ খুলে ফেল্লাম।ভাবলাম এই বেলা সাহস করে কিছু সত্যি কথা বলে গায়ের সেঁটে থাকা ভীতু ট্যাগটা সরাই। কিন্তু ভীতু-গিরি ব্যাপারটা আমার মধ্যে জিগার আঠার( এই জিগার আঠা ব্যাপারটা ঠিক কি আমি নিজেও জানি না ভালমত) মত গেড়ে গেছে। বিনপি-জামাতের সমালচনা করে তাও কিছু লেখতাম, কিন্তু ভদ্রলোকরা ক্ষমতা নেওয়ার পর থেকে আমি যেন ভীতু শিরোমনি হয়ে গেলাম। মনে কত কথা আসে কিন্তু লেখতে সাহসে কুলায় না।তার উপর মনে পড়ে সেই পার্থ নামের হতভাগ্য যুবকের কথা, দেশের অতি বিচক্ষণ আইটি শিরোমনি পুলিশ রাব ভাইরা যাকে ধরে “একটু আদর করে দিয়েছেন”। তাই চুপ করে ঘরের কোনে বসে রানিক্ষেত আক্রান্ত মুরগির মত ঝিমাই।কি দরকার মিছে ঝামেলার।

মাঝে মধ্যে মেজাজ খিচরে যায়, যখন কোথাকার কোন হরিদাস পালের কথা শুনে, ভদ্রলোকের সরকার পাটকল বন্ধ করে, সামান্য কার্টুনে অসামান্য ষড়যন্ত্র খুঁজে পায়।মাঝে মধ্যে মনে হয়, চিৎকার করে বলি, আমার কি রকম খারাপ লাগে যখন দেখি, “ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর শিক্ষক গ্রেফতারঃ জেল হাজতে প্রেরণ” শিরোনাম। তবে এর মাঝে যে অন্য কাজ করতেও ইচ্ছা করে না, তা নয়। যেমন মাঝে মধ্যেই মনে হয়, এক দলা থু থু ছিটিয়ে দেই দেশ এর সব আবাল বুদ্ধিজীবির গায়ের উপর, যারা এখনো নাকে তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছে। জাফর ইকবার স্যার কিংবা শাহরিয়ার কবির এর মত সাহসী লোক কই যারা শিক্ষকের মুক্তি দাবি করে দ্বিধাহীণ কন্ঠে।


========================================
এই সব সাত পাঁচ ভাবতে ভাবতে হঠাৎ টের পাই, উলটা পালটা ভাবছি আমি। এইসব ছাই পাশ ভেবে লাভ নাই। আমি মধ্যবিত্ত বাবা মার এক মাত্র ছেলে। বাবা মা অনেক শখ করে বুয়েটে ভর্তি করিয়েছে, পাশ করে ভাল চাকরি করার জন্য, এই সব রাবিশ চিন্তা করার জন্য না।

বিপ্লব করার জন্য অনেক লোক আছে, মধ্যবিত্তের জন্য বিপ্লব না। এইসব ভাবতে ভাবতে সার্কিট সল্ভ করার দিকে মনযোগ দেই,যা পেটে ভাত যোগাবে। বিপ্লবের চিন্তা অন্য কাউরো জন্য তোলা থাকলো।

Blog simultaneously published in http://www.sachalayatan.com/eeeboy/9354

Advertisements

Read Full Post »